মঠবাড়িয়ায় গৃহকর্মীকে গণধর্ষণ, ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

0
316

গড়াই নিউজ২৪.কম :: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ১৯ বছর বয়সী এক গৃহকর্মীকে পালাক্রমে গণধর্ষণের অভিযোগে ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ আজ সোমবার নির্যাতিত ওই গৃহপরিচারিকার ডাক্তারি সনদের জন্য পিরোজপুর জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠিয়েছে।এ ঘটনায় রবিবার রাতে ভূক্তভোগী গৃহপরিচারিকা বাদী হয়ে উপজেলার দাউদখালী গ্রামের আফজাল খানের ছেলে সুমন খান(২২), ছালাম হাওলাদারের ছেলে ইমরান হাওলাদার (২০) ও জিয়াম হাওলাদারের ছেলে রাজু হাওলাদারসহ (২৫) অজ্ঞাত আরও দু’জনকে আসামি করে মঠবাড়িয়া থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলা সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার দাউদখালী গ্রামের ওই যুবতী পার্শ্ববর্তী দেবত্র গ্রামের আজাদুর রহমান এর বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করে আসছিলেন। আসামিরা প্রায়ই আসা যাওয়ার পথে ঘাটে ওই যুবতীকে উত্ত্যক্ত করে নানা কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। গত শুক্রবার সন্ধ্যা রাতে নিজ বাড়ি থেকে পার্শ্ববর্তী দেবত্র গ্রামের গৃহকর্তার বাড়িতে কাজ করতে যাচ্ছিল সে। পথে সংঘবদ্ধ আসামিরা মেয়েটির পথ রোধ করে মুখ কাপড় চেপে স্থানীয় সাতঘর সরকারী ক্লিনিকের ছাদের উপরে নিয়ে য়ায়। সেখানে বখাটে ইমরান হাওলাদার প্রথমে মেয়েটিকে ধর্ষণ করে। পরে সুমন খান ও রাজু হাওলাদারসহ অজ্ঞাত আর দুইজন সহযোগী মেয়েটিকে আটকে রেখে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। রাত দেড়টার দিকে মাছ ধরতে যাওয়া আব্দুর রহমান নামে এক ব্যক্তি ক্লিনিকের ছাদে কথাবর্তার শব্দ শুনতে পান। এরপর তিনি টর্চ লাইটসহ ক্লিনিকের ছাদে এগিয়ে গেলে আসামিরা মেয়েটিকে ফেলে রেখে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। পরে মাছ শিকারী আব্দুর রহমান ক্লিনিকের ছাদ থেকে মেয়েটিকে উদ্ধার করে বাড়িতে পৌঁছে দেন। মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ আব্দুল্লাহ মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মেয়েটিকে পুলিশ হেফাজতে সোমবার ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য পিরোজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

একটি উত্তর ত্যাগ