কুষ্টিয়া পৌরসভার সার্বেয়ার মান্নানের ক্ষমতার উৎস কোথায়?

জেলার খবর

কুষ্টিয়া অফিস, গড়াইনিউজ২৪.কম:: কুষ্টিয়ার বারবার নির্বাচিত জননন্দিত মেয়র আনোয়ার আলীর ভাবমূর্তি ও সুনাম নষ্ট করার জন্য পৌরসভার সার্বেয়ার আব্দুল মান্নান ও জনি  যথেষ্ট। সূত্রমতে জানা যায়, কুষ্টিয়ার বাড়াদি মরা গড়াই খননের কাজ শুরু হয়েছে। আর এই মরা গড়াই খননের নামে চলছে মান্নান ও জনির ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ । যেন দেখার কেউ নেই। গড়াই খননের নামে মান্নান ও জMora Khalনির লক্ষ লক্ষ টাকা বানিজ্য চলছে বলে জানাযায় । মরা গড়াই খননের নামে সার্বেয়ার মান্নান ও জনি মালিকানা জমির বসতি গুলো ভেঙ্গে চুরমার করছে এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠছে এলাকাবাসী। যদি সরকারি প্লান অনুযায়ী কাজ করা হয় তবে কেন এখনো বাড়াদি পুলের পাশে মরা গড়াই (নদী) ভিতর অবস্থিত  ইয়ার আলীর দোতালা বাড়ি অবৈধ ভাবে দাঁড়িয়ে আছে কোন ক্ষমতার বলে। শুধু ইয়ার আলীর দোতালা বাড়ি নয় ডাকবাংলোয় চাকরিরত মিজান ও আশরাফুল সর্দারের বাড়ি ভাঙ্গা হয়নি মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, এমন অনেক বাড়ি মরা গড়াইয়ের বুকে সরকারী সীমানার মধ্যে দাঁড়িয়ে আছে। তাহলে সার্বেয়ার মান্নান  কি বলতে পারবেন নদী খননের কোন আইনে তিনি এ বাড়ি গুলো রেখে দিয়েছেন। এ বাড়ি গুলো রেখে দেয়ার উদ্দেশ্য কি? বাড়াদী পুলের সামনে এগিয়ে এসে মঙ্গল বাড়ি ব্রীজের আগে শুনতে পাই শত শত মানুষের কান্নার আহাজারি যেনো কান্না থামছেনা । এদিকে এসব ঘটনার প্রতিবাদ করায়  সংখ্যা লঘু হিন্দু পরিবার বিমল সেন কে হত্যার হুমকি দিয়েছে সার্বেয়ার আব্দুল  মান্নান। সমস্ত জনগণের মুখে একটাই  কথা সার্বেয়ার মান্নান কেনো কিছু বাড়ি রেখে দিচ্ছে আর কিছু বাড়ি ভেঙে চুরমার করছে । এ কেমন অবিচার মান্নানের তিনি শুধু গড়াইয়ের এ পাশে ও পাশে ফিতা ধরেই বাড়ি ভাঙার জন্য লাল দাগের নির্দেশনা দিয়ে যাচ্ছেন। সচেতন মহলের প্রশ্ন যে বাড়ি ভাঙা হয়নি সে গুলো গড়াইয়ের মধ্যে অবস্থিত হওয়া সত্যেও ফিতার আওতায় এলো না কেন। তবে কি টাকার বিনিময়ে ফিতার বাইরে চলে গেলো। অথচ সার্বেয়ার আবদুল  মান্নান ও জনি বাড়াদী পুলের সামনে এগিয়ে মঙ্গল বাড়ি বাজার ব্রীজের আগের বাড়ি গুলো মালিকানা জমি হওয়া সত্বেও জোড় পুর্বক রাতের আধারে ভেঙে দেয়া হচ্ছে। আবার অনেক জমির মালিককে গোপনে পৌরসভায় এসে দেখা করতে বলছে। এ দেখার উদ্দেশ্য কি? সমস্ত  এলাকাবাসীর মুখে এই অত্যাচারি আব্দুল মান্নান ও জনির বিচাররের দাবি। দাবি তাদের ক্ষতিপুরণের। বাড়াদীসহ কুষ্টিয়াবাসী গড়াই খনন কে স্বাগত জানাচ্ছে তারা বলছে সরকারের এই মহান উদ্দোগে আমরা  মহাখুশি। তাই বলে সার্বেয়ার মান্নান ও জনি কেনো  তাদের নিজস্ব ক্ষমতা বলে মরা গড়াইয়ের সরকারি জমি ছাড়াও আমাদের মালিকানা জমি রাতের আধারে ভেঙে দিচ্ছে। আমাদের কেনো তারা বেঁচে থাকার শেষ সম্বল টুকু ছিনিয়ে নিচ্ছে। কেনো তারা আমাদের মালিকানা জমির দলিল ও নকশা দেখার প্রয়োজন বোধ করছে না। এ ব্যপারে আব্দুল মান্নান সময়ের অপরাধ চক্র কে বলেন আমি আমার কাগজের নিয়ম অনুযায়ী কাজ করছি  কারো বাড়ী বা জমি জোর করে দখলের কোনো প্রশ্নয় ওঠেনা বলে জানান । জনির সাথে আলাপ কালে জানান আব্দুল মান্নান  টাকা নিচ্ছে কিনা আমার জানা নাই এ বিষয়ে আব্দুল মান্নান সাহেব ভালো বলতে পারবেন।  
Kormokar 2এদিকে মান্নানের দিকে অভিযোগ বিস্তর, সূত্রমতে আরো জানা যায়, কুষ্টিয়া বিসি স্ট্রীটে বাবর আলী গেটে অবস্থিত ডাঃ আব্দুর রহিম সুপার মার্কেটের সাথে কর্ম্মকার জুয়েলার্সের ৩৭ বছর পূর্বের ১তলা বিল্ডিংটি নীল নকশা করে তিন তলা করার অনুমতি দেয় এই সার্বেয়ার মান্নান। যা বর্তমান সময়ে বিল্ডিং কোড অনুযায়ী সম্পূর্ন বেআইনী। কিন্তু সার্বেয়ার মান্নান টাকা খেয়ে রাতারাতি সব বদলে দিতে পারে বলে অভিযোগ উঠেছে।
কে এই সার্বেয়ার মান্নান? কে এই জনি? কেন তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও কুষ্টিয়ার জননন্দিত মেয়র মহোদয়ের সুনাম ও ভাবমুর্তি নষ্ট করছে। জননন্দিত মেয়র  মহোদয় ও উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এই জনদুর্ভোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য।

ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ পড়–ন প্রথম পর্ব