ছোট থেকেই স্বপ্ন ছিল একজন দুর্দান্ত অভিনেতা হবো

0
881
রাহুল রাজু

আহম্মেদ নাসির, পাংশা প্রতিনিধি, গড়াইনিউজ২৪.কম:: ছোট থেকেই স্বপ্ন ছিল একজন দুর্দান্ত অভিনেতা হবো। এরপর গ্রাম থেকে ঢাকায় আসার পর স্বপ্নের পথে হাটা বন্ধ করি। কারণ, তখন মনে করতাম একজন অভিনেতা হতে হলে দেখতে অনেক স্মার্ট হতে হয়। অনেক হ্যান্ডসাম ও লম্বা হতে হয়। পরে সিদ্ধান্ত আবার চেন্জ হলো। আমি যখন BBA করছিলাম প্রাইম ইউনিভার্সিটিতে, তখন এইচ আইভি এর উপর একটি নাটিকা হয়, সেই নাটিকাতে আমার কাকতালীয় ভাবে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করারর সুযোগ হয়। আমার অভিনয় দেখে সবাই বলতে শুরু করলো” টিভি নাটকে যাওয়ার জন্য। আরো বল্লো মোশাররফ করিম পারলে তুমিও পারবা। এই ভাবেই রাহুল রিজু তার জিবনে স্বপ্ন পুরনের কথা গড়াই নিউজ২৪.কম কে বলেন

নাম: রাহুল রাজু। থানা : শৈলকুপা। জেলা : ঝিনাইদহ। জন্মস্থান : শৈলকুপা থানা। গ্রাম: রতনপুর। বাবা : জোয়াদ আলী মোল্লা
শুরু হয় স্বপ্নের পথে হাটা, রফিক প্রমানিক ভাইয়ের হাত ধরে, আকাংখা লোক নাট্য গোষ্ঠিতে শরু করলাম মঞ্চ নাটক। এর কিছু দিনপর মোস্তাক বিল্লাহ(প্রডিউসার) ভাইয়ের হাত ধরে প্রথম টিভি নাটকে অভনয় করলাম ২০১১ সালের দিকে। নাটকের নাম ছিল “মহল্লার ভাই”। পরিচালক ছিলেন আক্তারুজ্জামান তুহিন ভাই। এরপরে নিজেকে আরো উত্তম রুপে তৈরি করার জন্য ২০১১ সালেই যোগদিলাম ঢাকা মঞ্চে। সেখানে গুরু হিসাবে পেলাম গাজী ফারুক স্যারকে। এরপর গাজী ফারুক স্যারের একটি টিভি নাটকে অভিনয়ের সুযোগ পেলাম”তোমাকে পাওয়ার জন্য হে স্বাধীনতা” এভাবেই প্রথম দিকে শুরু। তিনটি সিনেমাতে অভিনয়ের সুযোগ হয়েছে…১. শফিক হাসান ভাইয়ের “স্বপ্ন ছোয়া২.বন্ধন বিশ্বাস ভাইয়ের “শুন্য” ৩. সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড স্যারের ” শেষ কথা”। এছাড়াও দুটি বিজ্ঞাপনে কাজ করারর সুযোগ পেয়েছি১, আতিক জামান ভাইয়ের “এন আর বি সি” ব্যাংকের এবং রেদওয়ান রনি ভাইয়ার “ম্যাজিক টুথ পাউডারের। আর নাটকেতো নিয়মিতই অভিনয় করছি। বিশেষ করে রেদওয়ান রনি ভাইয়ার নাটকে নিয়মিতই থাকছি, নাজমুল হাসান ভাই আমাকে অনেক সুযোগ দেন। অসাধারণ একটি সিরিয়ালে কাজ করছি যার নাম “সুয়োরানি দুয়োরানি” পরিচালক দেওয়ান নাজমুল স্যার। শাহরিয়ার রহমান ভাইয়ের ” সাবধান বাংলাদেশ” নামের একটি ক্রাইম পেট্রোল জাতীয় সিরিয়ালে কাজ করছি। চঞ্চল মাহমুদ স্যারের অনেক গুলো নাটকে কাজ করছি। এছাড়াও আরো অনেক গুনী পরিচালক গনের সাথে কাজ করেছি এবং করছি। যেমন খান সোহেল ভাই, ওয়ালিদ হাসান ভাই, মিয়াজি পাপন ভাই আমাকে সব সময় অনেক সুবুদ্ধি দিয়ে হেল্প করেন। এবারের ঈদের জন্য, নাজমুল হাসান ভাইয়ের “লুল” নাটকের শুটিং ১৬-১৭ তারিখ হবে। অসাধারণ একটি গল্প। নাটকে কাজ করা হয়েছে প্রায় ৫০-৬০ টি মতো। যার মদ্ধ্যে বেশ কিছু নাটকে প্রধান চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ হয়েছে। নাজমুল হাসানের ” একটি নাটক বানাবো, “সাধারণ মানুষের গল্প” রিপন রাজপুরী ভায়ের “স্বপ্ন” ইয়াসিন বিন আরিয়ানের “১০ টাকার গল্প” রুহুল আমীন বাবু ভাইয়ের একটি নাটকে প্রধান চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ হয়েছিল। এছাড়াও আলী সুজন ভাইয়ের সাথে প্রায় নিয়মিত কাজ হয়, বন্ধুর মতো ছোট ভাই শাহরিয়ার সুমনের সাথে কাজ করছি। আমার সবচেয়ে বড় এবং ভালো দিক হলো মিডিয়াতে আমার কোনো শত্রু নেই। কিন্তু অনেকেই আছে আমার খুব ভালো বন্ধু বা কাছের মানুষ। আমার বাবা মা বা আমার পরিবারের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে মিডিয়ার কাজের ব্যাপারে। এখনতো আমার স্ত্রী মিতা আমাকে পূর্ণ সহযোগীতা ও সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে, তারও খুব ইচ্ছা আমি যেনো একজন ভালো মানুষ হওয়ার সাথে এখন একজন বড় অভিনেতাও হয়। আর ব্যক্তিগত ভাবে আমার কোনো নেশা জাতীয় খাবারের অভ্যাস নেই, এমনকি আমি ধুমপান করতেও পছন্দ করিনা। তবে আমি একজন নেশাগ্রস্থ মানুষ। আর সেটা হলো অভিনয়ের নেশা। মরার আগ মূহুর্ত পর্যন্ত অভিনয়ের সাথেই থাকতে চাই।

একটি উত্তর ত্যাগ