কুষ্টিয়া তারাগুনিয়ার মুনতাজ, বাবলু ও হাসান সহ পাকুরিয়া মহিষকুণ্ডিতে রমরমা মাদক ব্যবসা!

0
653

কুষ্টিয়া অফিস, গড়াইনিউজ২৪.কম:: দৌলতপুর উপজেলার আল্লারদরগা মাদক সম্রাট জোতি ও বাবলু দুই ভাই প্রতিদিন আল্লার দরগার সেন্টার মোড়ে ও গোহাটের পেছনে হেরোইন ও ইয়াবা বিক্রয় করছে। জানাযায়, মাদক সম্রাট জোতি একাধিক মাদক ও অস্ত্র মামলার আসামী। দৌলতপুর ভাগজোতের হেরোইন ও ইয়াবা সম্রাট রফিকুল বিশ্বাসের নিকট থেকে প্রতিদিন প্রায় ১ কেজি হেরোইন ও ৫০০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে মাদক ব্যবসায়ী জোতি আল্লার দরগা সেন্টার মোড় ও গোহাটের পেছনে জোতির দুই স্ত্রী দিয়ে বিক্রয় করে। মাদক ব্যবসায়ী জোতি এলাকার যুব সমাজকে নষ্ট করে দিচ্ছে। প্রতিদিন প্রায় ৫০ টি ছেলের কাছে ৩ দফায় ২০ পুড়িয়া করে হেরোইন বিক্রি করে। মাদক ব্যবসায়ী জোতির নিকট থেকে কুষ্টিয়া ভেড়ামারা আলমডাঙ্গা কুমারখালী খোকসার মাদজক ব্যবসায়ীরা হেরোইন ও ইয়াবা পাইকারি ক্রয় করে। জোতির ভাই বাবলু হেরোইন ও ইয়াবা বিক্রয় করছে। পুলিশের হাতে বহুবার ধরা পরে মামলায় জামিন নিয়ে এসে আবারও এই মাদকের ব্যবসা করে। তারাগুনিয়া মাদক সম্রাটখ্যাত তারাগুনিয়া গ্রামের কাচারিপাড়া মৃত বিচ্ছেদ মিস্ত্রীর ছেলে মুনতাজ ও গঙ্গানামপুর হাসান নিয়মিত ইয়াবা হেরোইন ও গাজা বিক্রয় করছে। মহিষকুন্ডি হাতীশালা মোড়ে লাভলু ও মিলন প্রতিদিন সীমান্ত থেকে ২০ লক্ষ পিচ ইয়াবা নিয়ে এসে পাইকারি ভেড়ামারা কুষ্টিয়া সহ অত্র এলাকায় সরবরাহ করছে। সীমান্তবর্তী এলাকা জামালপুরে রয়েছে শতাধিক মাদক ব্যবসায়ী। তারা প্রতিদিন ভারতের সীমান্ত তার কাটা না থাকায় ছোট খাল পাড় হয়ে ভারত থেকে ফেন্সিডিল গাজা হেরোইন নিয়ে আসছে রাতের আধারে। জামালপুরের এই মাদক ব্যবসায়ীরা হলো মাদক ব্যবসায়ী জামালপুরের নজিবুল পাগলা, ঘাটপাড়ার ধিরেন, মনি, সাহাবুল, শফিকুল, মতিন, ডাবু, ফেরদৌস ও হাবলু। পাকুরিয়া গ্রামের মাদক ইয়বসায়ী হাবু ডাবু, বাবা ছেলে আজম ও রফিক ও নাম করা মাদক ব্যবসায়ী সেলিম মাদক ব্যবসা করে আসছে। এরা পুলিশ ও বিজিবি’র চোখ ফাকি দিয়ে দীর্ঘদিন এই গাজা, ফেন্সিডিল ও হেরোইন ভারত থেকে চোরাই পথে আমদানি করে স্বদর্পে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এব্যাপারে এলাকাবাসী কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার মেহেদী হাসানের নিকট আকুল আবেদন জানিয়েছেন দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্যে।

একটি উত্তর ত্যাগ